Breaking News

মাহে রমজানের স্ট্যাটাস

মাহে রমজানের স্ট্যাটাসরমজান মুসলিম উম্মাহর জন্য একটি গুরুত্ব পূর্ন মাসমুসলমানগন রমজান মাসে রোজা রেখে থাকেন ২৯ টি অথবা ৩০ টি এটি চাঁদ দেখার উপর নির্ভর করে থাকেতাই বন্ধুরা আপনাদের কাছের প্রিয়জনদের সাথে রমজানের এসএমএস অথবা রমজানের স্ট্যাটাস শেয়ার করতে পারেন

মাহে রমজানের স্ট্যাটাস



রমজান আল্লাহর ইবাদতের

এক অভূতপূর্ব ট্রেনিং স্বরুপ

- আল হাদিস

 

রমজান আল্লাহ বান্দার মাঝে নিতান্ত

গোপন ইবাদত তাই এর মাধ্যমে

আল্লাহ বান্দার মাঝে সম্পর্ক দৃঢ়তর হয়

- আল হাদিস

 

রমজান সামাজিক সহমর্মিতা

ভ্রাতৃত্ব বোধ সৃষ্টি করে

- আল হাদিস

 

আরও কিছু স্ট্যাটাস পড়ুন:

জুম্মা মোবারক স্ট্যাটাস

জুম্মা মোবারক ফটো পিকচার

ছেলেদের ইসলামিক নাম অর্থসহ

 

 

রোজা মানুষকে

আখেরাত মুখী করে

- আল হাদিস

 

রোজার মাধ্যমে

আচার-আচরণ চরিত্র সুন্দর হয়

- আল হাদিস

 

রোজার পুরষ্কার আল্লাহ নিজ

হাতে প্রদান করবেন

- আল হাদিস

 

রোজা কিয়ামতের দিন মুমিন

ব্যক্তির জন্য শুপারিশকারী হবে

- আল হাদিস

 

রমজান গুনাহ মোচনের

অন্যতম মাধ্যম

- আল হাদিস

 

রমজান জান্নাতে যাওয়ার উৎকৃষ্টতম উপায়

এবং রাইয়ান নামক বিশেষ দরজা

দিয়ে জান্নাতে প্রবেশের সুযোগ

- আল হাদিস

 

রমজান জাহান্নাম

থেকে রক্ষা পাওয়ার ঢাল

- আল হাদিস

 

রমজানের শেষ রাতে

সকল উম্মতকে মাফ করা হয়

- আল হাদিস

 

রোজাদারের জন্য প্রতিদিন

জান্নাতকে সজ্জিত করা হয়

- আল হাদিস

 

ইফতার পর্যন্ত রোজাদারের জন্য

ফেরেশতারা দোয়া করেন

- আল হাদিস

 

রোজাদারের মুখের দুর্গন্ধ আল্লাহর

কাছে মেশকের চেয়ে বেশী ঘ্রানযুক্ত

- আল হাদিস

 

হে ঈমানদারগণ,

তোমাদের উপর রোজা ফরজ করা হয়েছে।

যেমন ফরজ করা হয়েছিলো

তোমাদের পূর্ববর্তী লোকদের উপর

যেন তোমরা পরহেযগারী

অর্জন করতে পার।

- আল কুরআন

 

এক এক করে যাচ্ছে চলে মাহে রমযান,

কি করে দিবো আমি তার প্রতিদান.

ক্ষমার আশায় আজও আমি তুলি দুই হাত.

কবুল করো আল্লাহ তুমি আমার মোনাজাত

 

আসছে একটা রাত নাম তার শবেবরাত

তুলব আমরা দু হাত।

করব আমরা মোনাজাত।

আল্লাহ করবে গুনা মাফ।

তোমাদেৱ রইল দাওয়াত।

পালন করব শবেবরাত

 

এই রমজান মাসের একটি গুরুত্বপূর্ণ

রাত্রি হলো লাইলাতুল কদর।

হাদিস মোতাবেক রমজানের শেষের

দশদিন বেজোড় রাতে লাইলাতুল কদর

অন্বেষণ করার কথা বলা হয়েছে।

এই জন্য যে মহান আল্লাহ দেখতে চান

লাইলাতুল কদরের বরকত

ফজিলত লাভের উদ্দেশ্যে

তার কোন বান্দা বেশি ইবাদত করে।

রাসূল সা. এই শেষ দশকে

আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা

করতেন তা নিম্নোক্ত হাদিস দ্বারা প্রমাণিত।

হযরত আয়েশা রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন

আমি রাসূল সা. কে লাইলাতুল

কদরের কথা জিজ্ঞাসা করলাম,

আজ কি দোয়া পাঠ করব?

তিনি বললেন নিম্নের দোয়াটি পাঠ করবে:

হে আল্লাহ! নিশ্চয়ই তুমি ক্ষমাশীল।

তুমি ক্ষমাশীলতাকে ভালবাস।

অতএব আমাকে ক্ষমা করো।

 

সেহেরী খাওয়া সুন্নত।

সেহেরী খেয়ে রোজা রাখার

মধ্যে বরকত নিহিত রয়েছে।

হাদিস শরীফে এসেছে- আনাস বিন মালেক রা. হতে বর্ণিত,

রাসূল সা. বলেছেন- তোমরা সেহেরী খাবে।

কেননা, সেহরীতে বরকত রয়েছে। [বুখারী, মুসলিম]

 

হযরত সালমান আমের রা. বলেন,

রাসূল সা. বলেছেন,

যখন তোমাদের কেউ ইফতার করে সে যেন

খেজুর দ্বারা ইফতার করে,

কেননা এতে বরকত রয়েছে।

যদি খেজুর না পায়,

তবে যেন পানি দ্বারা ইফতার করে,

এটি পবিত্রকারী।

[আহমদ, তিরমিযী, আবু দাউদ, ইবনে মাজাহ, দারেমী]

 

সামনে আসছে রোজা,

হালকা কর গোনাহের বোঝা,

যদি কর পাপ চেয়ে নাও মাফ,

এসো নিয়ত করি,

আজ থেকে সবাই পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ি

No comments